পাক-ভারত পরমানু যুদ্ধে কার কী ক্ষতি হবে

Oct 02, 2016 11:33 am

 

ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে যুদ্ধ বাঁধে তাহলে ভয়ঙ্কর আকার নিতে পারে। শুধু দুটি দেশের মানুষের জীবন বিপন্ন হবে এমন নয়, গোটা বিশ্বেই বিরূপ প্রভাব পড়বে। এর ফলে অন্তত কয়েক কোটি মানুষ সরাসরি মারা যাবে। শুধু তাই নয়, পৃথিবীর উপরের বায়ুমন্ডলের ওজোন স্তরে অপূরণীয় ক্ষতি হবে, নেমে আসবে 'নিউক্লিয়ার উইন্টার' (পরমাণু বিস্ফোরণের পরে হঠাৎ করে নেমে আসা ঠান্ডা ও ধোঁয়ার চাদরে চারপাশ কালো করে আসাকে বলা হয় নিউক্লিয়ার উইন্টার)। এছাড়া বর্ষার হেরফের হয়ে চাষবাসের নিদারুণ ক্ষতি হবে।


পরমানু অস্ত্র দুদেশে আঘাত করবে। পরমাণু হামলা হলে প্রথম সপ্তাহের মধ্যেই অন্তত কয়েক কোটি মানুষ মারা যাবে। ধীরে ধীরে বিকিরণের প্রভাব এতটাই মারাত্মক হবে যে সারা পৃথিবীর অন্তত ২০০ কোটি মানুষের জীবন বিপন্ন হয়ে যাবে। বলতে গেলে গোটা মানবসভ্যতাই অবলুপ্তির পথে এগিয়ে যাবে। বেশ কয়েক বছর ধরে করা মার্কিন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় এমনই ভয়াবহ তথ্য উঠে এসেছে।


পাকিস্তানের বালিস্টিক মিসাইল তথ্য বলছে, পাকিস্তানের পরমাণু অস্ত্রের ৬৬ শতাংশ অর্থাৎ প্রায় ৮৬টি মাটিতে থাকা বালিস্টিক মিসাইল। ভারতের কথা মাথায় রেখে এখনও মিসাইল বানানো বন্ধ করেনি পাকিস্তান। পাকিস্তানের বালিস্টিরক মিসাইলগুলি ভারতের চারটি মূল শহর নয়াদিল্লি, মুম্বই, বেঙ্গালুরু ও চেন্নাইয়ে আঘাত হানতে পারে।

যুদ্ধ শুরু হলে সেভাবেই ব্যবস্থা করতে পারে পাকিস্তান। এছাড়া উত্তর ও পশ্চিমের শহর দিল্লি, জয়পুর, আহমেদাবাদ, মুম্বই. পুনে, নাগপুর, ভুপাল, লখনৌও পাকিস্তানের মিসাইলের সীমার মধ্যে রয়েছে। পাকিস্তানের দখলে এমন ক্ষেপনাস্ত্র রয়েছে যা ২৫০০ কিলোমিটার দূরে কলকাতাতেও আঘাত হানতে পারে। অর্থাৎ যুদ্ধ বাঁধলে পাকিস্তানের হামলায় গোটা ভারতই নিশ্চিহ্ন হয়ে যেতে পারে।


অপরদিকে ভারতের কাছে রয়েছে পৃথ্বী, অগ্নি সিরিজের বালিস্টিক মিসাইল যা আঘাত হানলে পাকিস্তানের অনেক শহর নিমেষে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। কারণ এই পরমাণু অস্ত্রগুলির যা ক্ষমতা তাতে পাকিস্তানের সমস্ত প্রদেশ ও শহর এর আওতায় চলে আসে।

ভারত হামলা চালালে লাহোর, ইসলামাবাদ, রাওয়ালপিণ্ডি, মূলতান, পেশোয়ার, করাচি, কোয়েট্টা সহ কোনও এলাকাই ধংসের হাত থেকে বাদ যাবে না। তবে ভারতের চেয়ে পাকিস্তানে শহরে বসবাস করা লোক সংখ্যা কম। অপরদিকে ভারতের শহর গুলোতে অনেক বেশি লোক বসবাস করে। ফলে পাকিস্তানের চেয়ে ভারতে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হবে।