আয়ু বাড়ায় মরিচ

Apr 24, 2017 12:53 pm

 

সম্প্রতি প্রকাশিত এক গবেষণা পত্র অনুসারে প্রতিদিন যদি মরিচ খাওয়া যায়, তাহলে নিশ্চিত ভাবে আয়ু বৃদ্ধি পায়। প্রায় ১৬০০০ মানুষের উপর করা হয়েছিল এই গবেষণটি। তাতে দেখা গিয়েছে যারা প্রতিদিন মরিচ খান, তাদের আয়ু সাধারণ মানুষের তুলনায় প্রায় ১৮ বছর বেড়ে যায়। এবার বুঝতে পারছেন তো মরিচ খেলে শুধু দৈহিক বৃদ্ধি ঘটে না, আয়ুও লম্বা হয়। এই গবেষণা পত্রটির সহ লেখক মুস্তাফা চপেন এবং বেঞ্জামিন লিটেনবার্গ সম্প্রতি "প্লোস ওয়ান" পত্রিকায় তাদের স্টাডিটি সম্পর্কে আলোচনা করতে গিয়ে বলেছিলেন, ক্যাপসিকাম প্লান্টের অন্তর্ভুক্ত লাল লঙ্কা নাইটশেড পরিবারের অংশ। এদের নানা প্রজাতি রয়েছে। এক একটা প্রজাতির ঝলের মাত্রা, এক এক রকম। যে মরিচগুলো খুব ঝাল, সেগুলো যদি খাওয়া যায়, তাহলেই সবথেকে বেশি উপকার পাওয়া যায়। কারণ এই ধরনের মরিচে ক্য়াপসাইসিন নামে একটি উপাদান থাকে, যা নানাভাবে শরীরকে সুস্থ রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। এখানেই শেষ নেয়, একাধিক গবেষণায় একথাও প্রমাণিত হয়েছে যে ক্য়াপসাইসিন ব্রেস্ট এবং কলোরেকটাল ক্যান্সার প্রতিরোধেও বিশেষ ভূমিকা নেয়।

কিন্তু প্রশ্নটা হল, ঝাল মরিচের সঙ্গে আয়ু বৃদ্ধির সম্পর্কটা কোথায়? ১৯৮৮ থেকে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত, ১৮ বছর বয়সিদের উপর চলা এই গবেষণায় দেখা গেছে টানা কয়েকমাস ঝাল মরিচ টানা খেয়ে গেলে হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটে। সেই সঙ্গে বাকি লাইফ স্টাইল ডিজিজ, যেমন ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, কোলেস্টেরল প্রভৃতি রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও হ্রাস পায়। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই আয়ু বৃদ্ধি পায়। প্রসঙ্গত, গত কয়েক দশকে সারা বিশ্বে মোট যত জন মারা গিয়েছেন তাদের মধ্যে বেশিরভাগেরই মৃত্যুর কারণ লাইফ স্টাইল ডিজিজ।

এর পরে নিশ্চয় আর সন্দেহ থাকার কথা নেই যে লঙ্কা বাস্তবিকই আমাদের আয়ু বৃদ্ধি করে। কিন্তু কীভাবে এই সবজিটি এই কাজটি করে থাকে, তা কিন্তু এখনও জানা যায়নি। এই নিয়ে যদিও গবেষণা চলছে। আশা করা য়েতে পারে আর কয়েক বছরে মধ্যেই এই প্রশ্নের উত্তরও আমরা পেয়ে যাব। বিজ্ঞানিদের ধরণা লঙ্কায় উপস্থিত ক্য়াপসাইসিনই এক্ষেত্রে আসল কাজটি করে থাকে। এই উপাদানটি আমাদের শরীরে এমন কিছু বিক্রিয়া ঘটায়, যা শরীরে চর্বি জমতে দেয় না। সেই সঙ্গে নানাবিধ লাইফ স্টাইল ডিজিজে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও কমায়। তাই সব শেষে বলতেই হয় যে, মরিচ বাস্তবিকই আমাদের সুস্থ রাখার মধ্যে দিয়ে আয়ু বৃদ্ধি করে। বর্তমানে যা পরিস্থিতি তাতে প্রতিদিন, প্রতিনিয়ত নানাভাবে আমাদের শরীরের ক্ষয় হচ্ছে। এই অবস্থায় সুস্থ জীবন পেতে আমাদের হাতের কাছেই প্রকৃতি এমন এক অস্ত্র দিয়ে দিয়েছে যাকে কাজে লাগিয়ে যে কোনও মারণ রোগ দীরে রাখা সম্ভব। তাই তো আর দেরি করা মনে হয় উচিত হবে না। আজ থেকেই প্রতিতিদিন রান্নায় দিয়ে অথবা কাঁচা অবস্থায় খাওয়া শুরু করুন মরিচ। দেখবেন দারুন উপকার পাবেন।