সূ চি যে কারনে জাতিসংঘে যাচ্ছেন না

Sep 13, 2017 04:58 pm
জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দেয়ার পরিকল্পনা বাতিল করেছেন সু চি


যুক্তরাষ্ট্রে শুরু হওয়া জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দেয়ার পরিকল্পনা বাতিল করেছেন মিয়ানমারের নোবেলজয়ী অং সান সু চি৷ সে দেশের সরকারের মুখপাত্র জ টেই এই তথ্য জানিয়েছেন৷


তিনি বলেন, অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা পরিস্থিতি সামাল দিতে সু চি জাতিসংঘের বৈঠকে যাবেন না৷ মিয়ানমার সরকারে সু চি'র আনুষ্ঠানিক পরিচয় তিনি স্টেট কাউন্সেলর ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী৷ জ টেই বলেন, প্রেসিডেন্ট অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি থাকায় দ্বিতীয় ভাইস প্রেসিডেন্ট জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দেবেন৷


সু চির জাতিসংঘে না যাওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে জ টেই বলেন, ‘‘প্রথম কারণ রাখাইনে সন্ত্রাসী হামলা৷ স্টেট কাউন্সেলর (সু চি) রাখাইনের পরিস্থিতি শান্ত করার কাজে মনোযোগ দিচ্ছেন৷ দ্বিতীয় কারণ, কয়েকটি এলাকায় দাঙ্গা উসকে দিচ্ছে কিছু মানুষ৷ আমরা আরও কয়েকটি এলাকার নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে কাজ করছি৷ (সু চি জাতিসংঘে না যাওয়ার) তৃতীয় কারণ হচ্ছে, আমরা শুনতে পাচ্ছি, ভবিষ্যতে সন্ত্রাসী হামলা হবে৷ আমরা এই বিষয়টি নিয়ে ভাবছি৷’’


উল্লেখ্য, গৃহবন্দিত্ব থেকে মুক্তি পাওয়ার পর সু চি মিয়ানমার সরকারে যোগ দিয়ে গতবছরই প্রথমবারের মতো জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে বক্তব্য দিয়েছিলেন৷ সেই সময় বিশ্বনেতৃবৃন্দ তাঁকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছিলেন৷ বক্তব্যে সু চি রাখাইনে দীর্ঘ সময় ধরে চলে আসা জাতিগত ও ধর্মীয় ঘৃণার সমাধানের অঙ্গীকার করেছিলেন৷


কিন্তু এবারের পরিস্থিতি সম্পুর্ন ভিন্ন। রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের জাতিগত নির্মুল অভিযান চালানোর সূ চি সরাসরি জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে। জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের প্রধান সরাসরি জাতিগত নির্মুল অভিযান চলছে বলে দাবি করেছেন। তিনি মিয়ানমারকে সমর্থন দেয়ার জন্য ভারতকেও অভিযুক্ত করেছেন। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানসহ একাধিক নেতা সাধারন পরিষদের অধিবেশনে গনহত্যার বিষয়টি তুলবেন বলে আগেই জানিয়েছেন। মুলত গনহত্যার দায় নিয়ে বিশ্ব নেতাদের এড়িয়ে চলতে চাইছেন সূ চি ।


এদিকে, বুধবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে৷ তবে চীন আভাস দিয়েছে, তারা তাদের দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় মিত্র দেশের বিরুদ্ধে সমালোচনার উদ্যোগ বাস্তবায়িত হতে দেবে না৷


অর্ধেকের বেশি অপ্রাপ্তবয়স্ক
জাতিসংঘের হিসেব বলছে, ২৫ আগস্টের পর থেকে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত যে তিন লক্ষ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা প্রবেশ করেছে তার মধ্যে অর্ধেকের বেশিই অপ্রাপ্তবয়স্ক৷ আর ইউনিসেফ বলছে, এগারো শ'র বেশি রোহিঙ্গা শিশু অভিভাবক ছাড়াই বাংলাদেশে পৌঁছেছে৷


কমিটি গঠন
মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট কার্যালয় জানিয়েছে, রোহিঙ্গা মুসলমানদের নিরাপত্তা ও জীবনমান উন্নয়নে দেয়া পরামর্শ বাস্তবায়নে ১৫ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে৷ জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কোফি আনানের নেতৃত্বাধীন একটি কমিশন গতমাসে এক প্রতিবেদনে কয়েকটি পরামর্শ দিয়েছিল৷ রোহিঙ্গাদের দেশটির নাগরিকত্ব দেয়া যায় কিনা তা-ও এই কমিটি খতিয়ে দেখবে বলে জানিয়েছে প্রেসিডেন্টের কার্যালয়৷


আল কায়েদার হুমকি
মিয়ানমারের মুসলমানদের প্রতি সমর্থন জানাতে বিশ্বের মুসলমানদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আল কায়েদা৷ এক বিবৃতিতে এই জঙ্গি সংগঠনটি মিয়ানমারের মুসলমানদের ত্রাণ, অস্ত্র ও ‘সামরিক সহায়তা’ দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে৷ ‘অপরাধের' জন্য মিয়ানমারকে ‘শাস্তি' দেয়া হবে বলেও সতর্ক করে দিয়েছে আল কায়েদা৷ সাইট মনিটরিং গ্রুপ আল কায়েদার এই বিবৃতির কথা জানিয়েছে৷

ডয়েচে ভেলে ও বিবিসি